বিবিধবৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী

এন্টিহিরো অরিজিন : ‘Namor-The Submariner’ [ Marvel ]

‘Namor-The Submariner’ মারভেল কমিক্সের অন্যতম পুরাতন একটি ক্যারেক্টার! এতটাই পুরনো যে তখন মারভেল কমিক্সের নাম মারভেল কমিক্স ছিলনা! ছিল Timely Comics! নামোর মারভেল কমিক্সের প্রথম মিউট্যান্ট ক্যারেক্টার। এমনকি মারভেল কমিক্সের প্রথম উড়তে পাড়ার ক্ষমতা সম্পন্ন ক্যারেক্টার ও এটি। এই ক্যারেক্টার টির আত্মপ্রকাশ ঘটে ১৯৩৯ সালে। এটির স্রষ্টা Bill Everett.

নামোর আটলান্টিস রাজ্যের রাজা এবং সে মূলত একজন এন্টিহিরো! যেহেতু নামোর বেশ পুরনো একটি ক্যারেকটার, সেহেতু এর অরিজিন টাও বেশ পুরনো!

Origin

সময়টা ১৯১৫ সাল! তখন আমেরিকার প্রাইম মিনিস্টার ছিলেন Winston Churchill ! তিনি Sir Ernest Shackleton নামের একজন কে এন্টার্কটিকায় তখনকার সময়ের সবচেয়ে মূল্যবান ধাতু ভাইব্রেনিয়াম খোঁজার জন্য পাঠান!

Sir Ernest Shackleton ও তার সঙ্গী – সাথীদের নিয়ে জাহাজ এ করে এন্টার্কটিকার উদ্দেশ্যে ভাইব্রেনিয়াম খুঁজতে বের হন! কিন্তু কোনো এক দুর্ঘটনায় তার জাহাজটি হারিয়ে যায়!

এর ৫ বছর পর ১৯২০ সালে Leonard Mckenzie নামের একজন কে জাহাজ টি খোঁজার জন্য পাঠানো হয়, তাদের এই আশাও ছিল যে তারা হয়ত ভাইব্রেনিয়াম পেতে পারে !
খুঁজতে খুঁজতে তারা সেই জাহাজটি পেয়ে যায়! কিন্তু এটি বড় বরফের খন্ডের সাথে আটকে ছিলো। তাই তারা জাহাজটিকে বের করার জন্য বরফের খন্ডে একটি বিষ্ফোরণ ঘটায়। কিন্তু এতে সমুদ্রের নিচে থাকা আটলান্টিস শহরের বেশ ক্ষয়-ক্ষতি হয়। কিছু আটলান্টিয়ান মারাও যায়।

Thakorr 
এতে তখনকার সময়ের আটলান্টিস এর শাসক Emperor Thakorr বেশ বিচলিত হয়ে পড়েন। তাই উপরে আসলে কি হচ্ছে তা নিয়ে অনুসন্ধান করার জন্য তার মেয়ে Princess Fen কে পাঠান। Princess Fen সমুদ্রের উপরে গিয়ে Leonard Mackenzie এর জাহাজ টি দেখতে পায়। ওরা আসলে কি চায়! তাদের কি উদ্দেশ্য তা জানার জন্য Princess Fen তাদের হাতে ধরা দেয়! জাহাজে থাকা লোক গুলো Princess Fen কে পাকড়াও করে Leonard Mackenzie এর কাছে নিয়ে আসে।

Princess Fen বুঝতে পারে যে তারা আসলে বুঝে শুনে কিছু করেনি! ইতোমধ্যেই Leonard Mackenzie এর সাথে Princess Fen এর ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠে! এমনকি কিছুদিনের মধ্যে তারা জাহাজেই বিয়ে করে ফেলে! কিন্তু Emperor Thakor বেশ চিন্তায় পড়ে যায়! কারণ প্রায় ১ সপ্তাহ হয়ে গেছে তার মেয়ের কোনো পাত্তা নেই। সে আন্দাজ করে যে, তার মেয়ে নিশ্চয়ই বিপদে আছে। তাই তিনি তার সেনা পাঠান তার মেয়েকে উদ্ধার করে নিয়ে আসার জন্য। Thakor এর সেনারা জাহাজের সবাইকে মেরে Princess Fen কে উদ্ধার করে নিয়ে যায়! এতে Leonard ও আহত হন!

যখন Princess Fen কে আটলান্টিস নিয়ে যাওয়া হয়, খুব শীঘ্রই তিনি বুঝতে পারেন যে তিনি সন্তান গর্ভে ধারণ করছেন! কিছু মাস পর ই সেই সন্তান ভূমিষ্ঠ হয়! এই সন্তান আর কেউ নয়, সে হচ্ছে হাফ হিউমেন- হাফ এটলান্টিয়ান এটলান্টিসের নেক্সট কিং Namor!! Namor এটলান্টিসেই বড় হতে থাকে।


এরপর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় তাদের রাজ্যের আশে – পাশে কিছু ডুবুরি দের দেখা যায়, যারা এটলান্টিয়ান ছিলো না! Namor এর উপর দায়িত্ব পড়ে এই ঘটনা অনুসন্ধান এর। Namor জানতে পারে তারা ছিল আসলে Nazi. যারা এটলান্টিস কে নিয়ে বেশ গবেষণা চালাচ্ছে! তাই Nazi দের কে রুখে দেয়ার জন্য সে প্রথম বারের মতো সার্ফেস এ আসে এবং Marvel এর প্রথম সুপারহিরো টিম ‘ The Invader’s ‘ এ জয়েন করে। যেই টিমে ছিলো Captain America, Bucky, Original Human Torch এর মতো ক্যারেক্টার!

তো এরপর দেখতে দেখতে সে The Invaders এর গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হয়ে যায়। কিন্তু সে অত ভালো মেম্বার ছিলো না! তার অতিমাত্রায় রাগ এবং অল্পতেই ধৈয্য হারানোর কারণে কখনো কখনো সে নিজ টিম মেম্বারদের সাথে ফাইট করত। এবং বেশিরভাগ সময় ই Anti-Hero দের মতো কাজ করত!

এই পর্যন্ত ছিলো Namor এর Golden Age এর কাহিনী!

পরবর্তীতে Marvel Age এ তাকে যখন দ্বিতীয়বারের মতো পরিচয় করানো হয়, তখন তাকে মূলত ভিলেন হিসবেই দেখা গেছে!

একদিন নিউ ইয়র্ক এর রাস্তায় নতুন Human Torch Johnny Storm এক অদ্ভুদ ধরনের লোক কে দেখে। তার মুখ ছিল দাড়ি দিয়ে ভর্তি। সে লোকটির চাল-চলন ও ক্ষমতা দেখে সে অবাক হয়ে যায়! তাই সে তার পাওয়ার দিয়ে লোকটির দাড়ি পুড়িয়ে দেয়! চেহারা থেকে দাড়ি চলে যাবার পর Johnny Storm বেশ অবাক হয়ে যায়! সে বুঝতে পারে, সে আর কেউ নয় The Invaders এর মেম্বার Namor! যে কিনা কোনো এক কারণে তার স্মৃতি শক্তি হারিয়ে ফেলেছে! তাই Johnny Storm তাকে নিয়ে গিয়ে সমুদ্রে ফেলে দেয়!

এতে Namor এর স্মৃতি শক্তি ফিরে আসে!

এরপর সে বুঝতে পারে তার এই দশার জন্য দায়ী সার্ফেস এর মানুষেরাই! মানুষদের নিউক্লিয়ার পরীক্ষা তাকে ও তার এটলান্টিসের মানুষদের ক্ষতি করেছে। সে এবার তার বদলা নিবে! তাই সে Giganto নামের বিশাল জলজ প্রাণিকে নিয়ে New York এ হামলা করে! আর এতে Fantastic Four এর সাথে তার যুদ্ধ বাধে! অবশেষে Fantastic Four Namor এর হাত থেকে New York কে বাঁচাতে সক্ষম হয়! তবে এই ফাইটের মধ্যেই Namor Fantastic Four এর মেম্বার Susan এর প্রেমে পড়ে যায়! এবং তাকে Atlantis এর রানী বানাতে চায়।

এরপরও তাকে Fantastic Four এর সাথে আরো অনেকবার লড়তে দেখা যায়। এমনকি সে Doctor Doom এর সাথে টিম আপ করতে দেখা যায়! Doctor Doom যে কিনা একজন সুপারভিলেন![ আশা করি পরে তাকে নিয়ে লেখা হবে ]। আর এভাবেই Golden Age এর Namor World War 2 এর হিরো থেকে Marvel Age এ এসে ভিলেন হয়ে যায়!

এরপর যখন Hulk এর সাথে Marvel এর নিউ টিম Avengers এর দ্বন্দ শুরু হয় তখন সে Hulk এর সাথে টিম আপ করে Avengers দের সাথে ফাইট করতে চায়!

এছাড়া পরে সে Magneto এর সাথে টিম আপ করে X-Men এর বিরুদ্ধেও লড়াই করে।
আর এসব কর্মকান্ডের জন্য তাকে Marvel এ Anti Hero এর তকমা দিয়েছে!!

তাকে Illuminati, New Invaders, Cabal সহ আরো বেশ কিছু টিমে দেখা যায়।

Powers And Abilities :

Namor খুব পাওয়ারফুল একটি ক্যারেক্টার। সে পানিতে খুব দ্রত চলাচল করতে পারে। তার রয়েছে সুপার ডিউরিবিলিটি। সে হ্যান্ড টু হ্যান্ড ফাইটে বেশ পারদর্শী। সে পানিতে থাকা সকল প্রাণিদের সাথে কথা বলতে পারে। তাদের সাথে মনে মনেও কথা বলতে পারে। তাছাড়া তার দারূণ হিলিং পাওয়ার ও রয়েছে। এমন কি সে উড়তেও পারে। তার দুপায়ে থাকা ডানা তাকে উড়তে সাহায্য করে।

তাছাড়া সে রেডিয়েশন এভসর্ব করতে পারে এবং তার রয়েছে Super Hearing এর ক্ষমতা।

সংক্ষেপে :

নাম : Namor Mackenzie
উপনাম : The Submariner
মায়ের নাম : Fen
বাবার নাম : Leonard Mackenzie
উচ্চতা : ৬ ফুট ২ ইঞ্চি
ভর : ১২৬ কেজি
চোখ : ধূসর-নীল
চুল : কালো
জন্মের স্থান : আটলান্টিস
কার্যক্ষেত্র : Atlantean Royal Family (Earth-616), Invaders (WWII) (Earth-616), Atlantean Army Atlantis, Illuminati, X-Men, X-Men (New Charles Xavier School) (Earth-616), Phoenix Five, Invaders (Modern) (Earth-616)Defenders,, Avengers, All-Winners Squad, Titans Three, Fantastic Four, Oracle Inc. (Earth-616), Deep Six (Namor) (Earth-616) (founder and leader); ally of Betty Dean, Doctor Doom

আসলে Marvel/DC কমিক্সের সকল চরিত্র আসলে কাল্পনিক !! কাল্পনিক হলেও বেশিরভাগ ক্যারেক্টার দের ক্ষমতা আমাদের আশে-পাশের বস্তু বা জিনিস থেকেই নেয়া হয়েছে!

কথিত আছে একসময় Atlantis নামের এক রাজ্য ছিল এই পৃথিবীতে! যা কোনো এক কারণে সমুদ্রের নিচে তলিয়ে যায়! সেই সমুদ্রের নিচে তলিয়ে যাওয়া Atlantis কেই কেন্দ্র করে Namor কাহিনী লেখা হয়েছে! Namor যে কিনা Atlantis এর রাজা!

Namor এর ক্ষমতা এবং Namor সম্পর্কিত জিনিস গুলো বিজ্ঞানে আসলে ব্যাখ্যা নেই । কেননা এগুলো কাল্পনিক, সেই সাথে পানির নিচে রাজ্য এবং রাজ্যে মানুষ থাকতে পারে তা আসলে আজগুবি একটা ব্যাপার! তবে পানিতে থাকা জীবগুলোর ক্ষমতা Namor এর মধ্যে দেয়া হয়েছে। যেমন : দ্রুত সাতার কাটা, পানির নিচে মাছের মতো অক্সিজেন নিয়ে বেচে থাকা ইত্যাদি!

আসলে সবকিছু বিজ্ঞানের আলোকে বিশ্লেষণ করা সম্ভব নয়! এটা ফ্যান্টাসির জগত। এখানে সবকিছুতে বিজ্ঞান থাকে না! মানুষদেরকে আনন্দদানের জন্যই এসব তৈরি। এখানে বিজ্ঞান খুঁজলে কোনো মজাই পাওয়া যাবে না

এগুলো বাস্তবতার আলোকে তৈরি হয়! বাস্তবে এগুলো থাকলে কি হতো তার আলোকে এগুলো লেখা হয়! আসলে এগুলো বাস্তব নয়!

বর্তমানে জেনেটিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বেশ সাড়া ফেলেছে, বেশ অগ্রগতি সাধন করেছে। বিভিন্ন প্রানী-উদ্ভিদের জেনেটিক্যালি মিউটেশন ঘটিয়ে ওই প্রানী-উদ্ভিদের উন্নত জাত তৈরি করা যাচ্ছে। হয়তো ভবিষ্যতে জেনেটিক্যালি মিউটেশন ঘটিয়ে সুপার হিউম্যান তৈরি করা সম্ভব হতে পারে। এমনো হতে পারে যে, মানুষদের পানির নিচে যাওয়ার জন্য কোনো কিছুর সাহায্য প্রয়োজন হবে না! পানির নিচে অনায়াসে সাতার কাটা যাবে!
হতেও পারে, কারণ বিজ্ঞান মানেই হচ্ছে অসম্ভবকে সম্ভব করা।

Source এবং আরো জানতে : marvel.fandom.com

আপনার মতামত লিখুন :

ট্যাগ

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close