মহাকাশ

২০২০ সালের মহাকাশীয় সব ঘটনা

সময় এসে গেছে ২০১৯ সালকে বিদায় জানানোর। আর বরণ করে নিতে হবে ২০২০ কে। ভাবতেই অবাক লাগে ২১ শতকের এক-পঞ্চমাংশ আমরা শেষ করে ফেলেছি। ২০১৯ সালে অসীম মহাকাশের অনেক আশ্চর্য ঘটনার সাক্ষী হয়েছি আমরা সকলেই। যার সর্বশেষ সংযোজন ডিসেম্বরের সূর্যগ্রহণ।

২০২০ সালেও আমরা সাক্ষী হব এমন অনেক আশ্চর্য ঘটনার।

জেনে নিই কিচ্ছু গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টের কথা যেগুলো ২০২০ এ আমাদের সামনে আসবে।

মিটিওর শাওয়ার (Meteor Shower)

একে আক্ষরিক ভাবে উল্কা বৃষ্টি বলা হয়। কিন্তু ভালো বাংলায় এর নাম স্বর্গীয় স্নান। সবচেয়ে বেশি উল্কা বৃষ্টির দেখা মিলবে আগষ্ট ও ডিসেম্বর মাসে। উল্কা বৃষ্টি হলেও আবার সবসময় তা দেখা যায় না। এর পরিমাণ নির্ণয় করা হয় ZHR (Zenithal Hourly Rate) এর উপর। এর মানে সঠিক আবহাওয়ায় আমরা প্রতি ঘন্টায় কটি উল্কা দেখবে তার পরিমাণ। চাঁদ কোন দিকে মুখ করে থাকবে সেটাও এখানে গুরুত্বপূর্ণ। সামনের ৪ জানুয়ারী উল্কা বৃষ্টি হবে, কিন্তু আমরা সেটা স্পষ্ট দেখতে পাবো না। যে তারিখগুলোতে আমরা স্পষ্ট উল্কা বৃষ্টি দেখতে পাবো সেগুলো হলঃ

উল্কা বৃষ্টি
  • ২২ এপ্রিল
  • ২৭ জুন
  • ১২ আগষ্ট
  • ১০ অক্টোবর
  • ২১ অক্টোবর
  • ১৭ নভেম্বর
  • ১৪ ডিসেম্বর

দ্যা আউটার প্ল্যানেটস

এই শব্দ গুচ্ছটাকে ইংরেজিতেই মানায়। তাই আর বাংলায় নেওয়ার চেষ্টা করলাম না। এর মানে হচ্ছে আমাদের সৌরজগতের অন্য গ্রহদের খালি চোখে দেখতে পাওয়া। তবে সব গ্রহ নয়। যে গ্রহ গুলো সূর্যের থেকে দুরত্বের বিচারে পৃথিবীর পরে অবস্থান করে তাদের। এই ধরণের গ্রহদের আউটার প্ল্যানেটস বলে। সূর্য তো বলতে গেলে আপেক্ষিক। একপাশে আলো আর অন্যপাশে অন্ধকার কিন্তু তবুও সূর্য সর্বদাই বিদ্যমান। তো আমি যে কথাগুলো বলবো সেটা পৃথিবীর যেই গোলার্ধে আপনি রয়েছেন সেই সাপেক্ষে চিন্তা করবেন।

সূর্য যেদিক দিয়ে উদিত হয় ঠিক তার বিপরীত পাশে যদি অন্য কোন গ্রহ অবস্থান করে তবে তাকে খালি চোখে পর্যবেক্ষণ করা যায়। মঙ্গল ব্যাতিত অন্যসব গ্রহ প্রতি বছরে একবার এরকম অবস্থানে থাকে। আর মঙ্গল প্রতি ২ বছরে একবার। ২০২০ সাল এমন একটি বছর যেবার মঙ্গল কেউ পৃথিবী হতে খালি চোখে দেখা যাবে। কোন গ্রহকে কবে দেখা যাবে তারিখ গুলো হলঃ

  • ১৩ অক্টোবর- মঙ্গল গ্রহ
  • ১৪ জুলাই- জুপিটার গ্রহ
  • ২০ জুলাই- শনি গ্রহ
  • ৩১ অক্টোবর- ইউরেনাস
  • ১১ সেপ্টেম্বর- নেপচুন
  • ১৫ জুলাই- প্লুটো

দ্যা ইনার প্ল্যানেটসঃ

এবার সেইসব গ্রহ যেগুলো দুরত্বের বিচারে আমাদের আগে অবস্থিত। শুক্রকে সবচেয়ে স্পষ্টভাবে বছরে দুইবার দেখা যাবে। ২৪ মার্চ ও ১৩ আগষ্ট।

আর বুধ গ্রহ টেবিলের শীর্ষে। তাকে দেখা যাবে ৬ বার। ১০ ফেব্রুয়ারী, ২৪ মার্চ, ৪ জুন, ২২ জুলাই, ১ অক্টোবর, ১০ নভেম্বর।

গ্রহণ

২০২০ এ আমরা মোট ছয়টি গ্রহণ দেখতে পাবো। চারটি চন্দ্রগ্রহন আর দুটি সূর্যগ্রহণ। বছরের ডিসেম্বরে সাউথ এশিয়া আবারো একটি পূর্ণ সূর্যগ্রহণের সাক্ষী হবে যা স্থায়িত্ব থাকবে প্রায় দুই মিনিট।

  • ১০ জানুয়ারী। এদিন চন্দ্রগ্রহণ হবে। নিমজ্জিত অংশের পরিমাণ ৮৮ শতাংশ। ইউরোপ, এশিয়া, আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া থেকে দেখা যাবে।
  • ৫ জুন, এদিনও চন্দ্রগ্রহণ হবে। নিমজ্জিত অংশের পরিমাণ ৫৯ শতাংশ। এদিনও চন্দ্রগ্রহণ ইউরোপ, এশিয়া, আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া থেকে দেখা যাবে।
  • ২১জুন, এদিন অবশ্য সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। সর্বোচ্চ ৩৮ সেকেন্ডের বলয়গ্রাস প্রতীয়মান হবে। মধ্য আফ্রিকা, দক্ষিণ এশিয়া, চায়না ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল হতে দেখা যাবে।
  • ৫ জুলাই আবারো চন্দ্রগ্রহণের দেখা মিলবে। নিমজ্জিত অংশের পরিমাণ ৩৬ শতাংশ। আমেরিকা, দক্ষিন-পূর্ব ইউরোপ ও আফ্রিকা হতে দেখা যাবে।
  • ৩০ নভেম্বর হবে শেষ চন্দ্রগ্রহণ। এদিন নিমজ্জিত অংশের পরিমাণ থাকবে ৭৪ শতাংশ। এশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল ও আমেরিকা হতে দেখা যাবে।
  • ১৪ ডিসেম্বর হবে পূর্ণ সূর্যগ্রহণ। এদিন বলয়গ্রাসের ব্যাপ্তি হবে ২ মিনিট ১০ সেকেন্ড। দক্ষিন প্রশান্ত, চিলি, আর্জেন্টিনা ও দক্ষিন আটলান্টিকের উপর দিয়া সূর্যের বলয়গ্রাস হবে।
১৪ ডিসেম্বরের সূর্যগ্রহণের এনিমেশন

কনজাঙ্কশন

এটা হচ্ছে এমন একটি ঘটনা যখন দুটি বা তার বেশি মহাকাশীয় বস্তু (গ্রহ, উপগ্রহ, ধুমকেতু, নক্ষত্র যেকোন কিছু হতে পারে) পরস্পরের খুব কাছাকাছি থাকে। আর তাদের দেখে একটি গ্রুপ বলে মনে হয় । এ বছরের এরকম ঘটনা ঘটার দিন গুলো নিচের ছকে দেওয়া হল

এই লিঙ্কে আরো ডিটেইল লিস্ট পাওয়া যাবে।

মোটামুটিভাবে খালি চোখে দেখার মতো ঘটনা এগুলিই হবে। এছাড়াও আরো কিছু ইভেন্ট আছে যেগুলো খালি চোখে দেখা না গেলেও তার জন্য টেলিস্কোপ লাগবে না। সাধারণ বাইনোকুলার বা দূরবীনে দেখা যাবে।

সে ব্যাপারে জানতে এই লিঙ্কে প্রবেশ করুন।    

তথ্যসূত্রঃ universe today, in-the-sky.org, space.comrmg.co.uk,   

কিভাবে তৈরি করা হয় গ্যালাক্সির ছবি?

   

আপনার মতামত লিখুন :

ট্যাগ
Back to top button
Close