টিপসদৈনন্দিন বিজ্ঞান

হতাশা কাটাতে শারীরিক পরিশ্রম কতটা কাজের?

সবচেয়ে পরিচিত একটি মানসিক সমস্যা কি জানেন? হতাশা! ধরুন আপনি কোনো একটি কাজে যথেষ্ট পারদর্শী। তবে আপনাকে যদি এই হতাশা আকড়ে ধরে, তাহলে সে কাজে আপনার পারদর্শিতাকে কাজে লাগানোর ক্ষমতা অনেকাংশে কমে যাবে।

হতাশা আমাদের শরীরের উপর বেশ কিছু প্রতিকুল প্রভাবও ফেলতে পারে। যেমনঃ অনিদ্রা, মানসিক ক্লান্তি এবং দুর্বল রোগ-প্রতিরোধ ব্যবস্থাপনা। এই হতাশা কাটিয়ে উঠতে শারীরিক পরিশ্রম বেশ ফলপ্রসূ; রয়েছে কিছু মনস্তাত্ত্বিক কলাকৌশল যা আপনাকে সাহায্য করবে শারীরিক পরিশ্রমের প্রতি আগ্রহ হতে। আজকের আলোচনা তা নিয়েই।

মন প্রস্তুত?

কথায় আছে, “ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়।” আপনি যদি অপেক্ষায় থাকেন মোটিভেশন পাওয়ার, তবে আপনাদের ধরে নিতে হবে সেটির সময় কখনও আসবে না। নিজেকে বলুন – “Let’s do it”।

ব্যায়াম করুন বন্ধুদের সাথে

একা একটি কাজ করা এবং সবাই মিলে একটি কাজ করা – দুটোর মধ্যে বেশ পার্থক্য। আমরা যখন কোনো কাজ দলবদ্ধভাবে করি, তখন এমনিতেই আমাদের মধ্যে একটি রোমাঞ্চ কাজ করে। তখন হতাশা কেটে গিয়ে কাজ হয় আরো সুন্দর। সুতরাং, এই সুযোগটিকেই আপনার কাজে লাগাতে হবে।

বিশ্রাম নিন

ব্যায়াম করার নির্দিষ্ট সময় পর পর বিশ্রাম নেওয়া অতীব জরুরি – এটাই স্বাভাবিক নিয়ম। যদি আপনি শারীরিক ভাবে খুব ক্লান্ত বা অসুস্থ বোধ করেন, সেক্ষেত্রে আপনার উচিৎ হবে নিজের প্রতি যত্ন নেওয়া – যেমনঃ কিছুক্ষণ সূর্যের আলোর ছোঁয়া নিতে পারেন, স্বাস্থ্যকর নাস্তা করে নিতে পারেন বা পড়তে পারেন আপনার প্রিয় কোনো বই।

ব্যায়াম সম্পর্কে ভুল চিন্তা

হয়ত কেউ যখন ব্যায়াম করার কথা শোনে, তার মনে হতে পারে ব্যায়াম করা বলতে বোঝায় শুধুই – Gym-এ গিয়ে কঠিন এবং কষ্টদায়ক কাজকর্ম করা। তবে এ ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। যেকোনো ধরণের খেলা যেমনঃ ক্রিকেট, ফুটবল, ব্যাডমিন্টন, ভলিবল, টেনিস থেকে শুরু করে অ্যাথলেটিক্সও হতে পারে। ব্যায়াম একটি মজার কাজ যেটি একইসাথে আপনার সুস্বাস্থ্য ও সুন্দর মন তৈরিতে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে।

ব্যায়ামের পোশাক

আমরা যখন স্কুল অথবা কলেজে নির্ধারিত পোশাকে যাই, তখন নিজেদের কেমন বোধ হয়? স্বাভাবিকভাবেই অসাধারণ অনুভূতি। এতে আমাদের স্কুল বা কলেজের কার্যক্রমের প্রতি আগ্রহ বজায় থাকে। ঠিক একই রকমভাবে আপনি যখন ব্যায়ামের জন্য নির্ধারিত পোশাক ব্যবহার করবেন, অবশ্যই তা হবে যথেষ্ট যুক্তিযুক্ত।

প্রত্যেক মানুষের বয়স এবং শারীরিক সক্ষমতা অনুযায়ী রয়েছে ভিন্ন রকমের ব্যায়াম। এ কারণে আপনি সে ধরণের ব্যায়াম-ই নিয়মিত করতে নিশ্চিত করুন, যেগুলি আপনার জন্য অনুকূল। তাছাড়া একটি নির্দিষ্ট রুটিন ঠিক করে নিয়মিত আপনার শারীরিক পরিশ্রম তথা ব্যায়াম করার অভ্যাস গড়ে তলুন এবং হতাশাকে কাটিয়ে তুলুন।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close