জীব রসায়নদৈনন্দিন বিজ্ঞান

স্বপ্ন Vs ভিটামিন B6

স্বপ্ন দেখতে কার না ভাল লাগে? স্বপ্নের জগত সকলের কাছেই অনেক প্রিয় আর নিজস্ব একটি জগত যেখানে শুধু আপনারই আধিপত্য। তবে সব থেকে অপ্রিয় সত্য হচ্ছে অনেক সময়ই আমরা স্বপ্ন দেখার পর সেটি ভুলে যাই। শত চেষ্টার পরও তা মনে করা হয়ে উঠে না। তবে এ সমস্যা যে শুধু আমার আপনার তা নয় সমস্যাটা মানব সম্প্রদায়ের।
তবে এই সমস্যার সমাধানও আবিষ্কার করে ফেলেছেন গবেষকগণ। সম্প্রতি Perceptual and Motor Skills শিরোনামে একটি জার্নালে বলা হয়েছে ঘুমানোর আগে ভিটামিন B6 গ্রহণ করলে সে সাধারণ ব্যক্তির তুলনায় সঠিক ভাবে স্বপ্নের স্মৃতিচারণ করতে পারেন।
অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডিলেড বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিষয়ের গবেষক ড. ডনোমোম এসপিজি Dr. Denholm Aspy উল্লেখ করেন,”গবেষণা পরবর্তী ফলাফল আমাদের দেখায় যে ভিটামিন B6 গ্রহণ কারী ব্যক্তির স্বপ্নের স্মৃতিচারণেরর ব্যাপারে কতটা উন্নতি ঘটেছে”।
অর্থাৎ গবেষণায় এটা প্রতীয়মান হয় যে স্বপ্ন দেখার পর পুনরায় সেটি মনে করার ব্যাপারে ভিটামিন B6 একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আর সেটা গবেষকদের কাছে সত্যিই আরেকটি নতুন স্বপ্নের জন্ম দেয়।
তবে গবেষণা চলার পূর্বে কয়েকটি প্রশ্ন তাদের সামনে আসে যার একটি ছিল B6 গ্রহণের পর একজন মানুষের স্বপ্নের উজ্জ্বলতা, ধরন কিংবা প্রকৃতি তে কোন পরিবর্তন ঘটবে কিনা?
যেমন ধরুন আপনি খুব রোমান্টিক স্বপ্ন দেখেন সেটি হতে পারে Anastasia মুভির সেই রোমান্টিক এডভেঞ্চার টাইপের হিরো রূপে। সেটি যাতে কোন ভাবেই প্রকৃতি বদল করে এর ভিলেন বানিয়ে না দেয়।
আরেকটি বিষয় ছিল যে এটি কোন ভাবেই একজন ব্যক্তির ঘুমের কোন সমস্যা করে কিনা। তবে ভিটামিন বি 6 তাদের স্বপ্নের উজ্জ্বলতা, উদ্ভটতা বা রঙের উপর কোন প্রভাব ফেলেনি।
এবং আপনি এটা জেনেও অবাক হবেন যে, এই গবেষণাটি ছিল প্রথম একটি গবেষণা যেখানে স্বপ্নের সাথে বিভিন্ন ভিটামিনের প্রভাব নিয়ে গবেষণা করা হয় এবং সেটিও বেশ বৃহৎ পরিসরে। এই গবেষণায় গড়ে ২৭ দশমিক ৫ (২৭.৫) বছরের প্রায় ১০০ জন ব্যক্তি অংশগ্রহণ করেন। যাদের অনেকেই মনে রাখার জন্য একপ্রকারের পিল ব্যবহার করতে যাকে বলা হয় placebo.(a harmless pill, medicine, or procedure prescribed more for the psychological benefit to the patient than for any physiological effect.)
এবার তাদের মাঝে এলোমেলো ভাবে কাউকে প্লাসেবো,কাউকে 40 মিলিগ্রাম ভিটামিন বি 6 (পাইরিডোজিন হাইড্রো ক্লোরাইড) পাঁচ দিনের জন্য খেতে বলেন।
গবেষণায় দেখা গেছে যে ভিটামিন বি 6 উল্লেখযোগ্যভাবে অংশগ্রহনকারীদের স্বপ্ন স্মরণ করিয়ে দেয়, কিন্তু স্বপ্নের উজ্জ্বলতা, উদ্ভটতা বা রঙের উপর উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাব বিস্তার না করেই এবং এটি -সংশ্লিষ্ট ভেরিয়েবলগুলিকেউ উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবান্বিত করেনি।
গবেষণার পর অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে একজন বলেন,”মনে হয় আমার স্বপ্নের সময় ছিল স্পষ্ট এবং পরিষ্কার এবং যা সহজেই মনে রাখা সম্ভব। এমনকি আমি পুরো দিনের একটি সময়ও এর সামান্য অংশও ভুলে যাই নি।”
অন্য আরেকজন অংশগ্রহণকারী বলেন,” আমার স্বপ্ন এতটাই বাস্তবধর্মী ছিল যে সেটা আমি বারবারই দেখতে ও মনে করতে চাইবো।”
গবেষক দলটি দাবি করছে আমরা আমাদের জীবনের প্রায় ছয় (৬) বছরের বেশী সময় স্বপ্ন দেখে কাটাই আর এই স্বপ্ন গুলোকে যদি আমরা স্বচ্ছ ও নিয়ন্ত্রত করতে পারি তাহলে স্বপ্ন গুলোকে আমরা সম্পদে পরিনত করতে সক্ষম হবো। অর্থাৎ এই বিশাল সময়ের অপচয় রোধ সম্ভব হবে।
ভবিষতে যাতে খাদ্য তালিকার একটি বিশাল অংশ জুড়ে বি৬ সযুক্ত করা হয় তাহলে আমরা আমাদের দৈনন্দিন অনেক কাজ যেমন পড়াশুনা,প্লান করা ইত্যাদি কাজ গুলো নিয়ন্ত্রিত ভাবে স্বপ্নের মাধ্যমেই করতে পারবো। গবেষক ডনোমোম এর নাম দিয়েছেন Lucid dreaming.
খুব শীঘ্রইহয়ত এর বাস্তবায়ন দেখতে পাবে বিশ্ববাসী। যাতে মনে হবে স্বপ্ন নয় বরং বাস্তবেই ঘটছে স্বপ্ন গুলো এর ব্যবহারে হতাশাগ্রস্থ লোক দেরও চিকিৎসা করা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন মনোবিজ্ঞানীরা।
তবে এব্যাপারে আরো গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে কেননা শুধু ভিটামিন বি৬ ব্যবহার করে যদি স্বপ্নের স্মৃতিগত প্রভাবকে প্রভাবিত করা সম্ভব হয় তবে খাদ্য হিসেবে এর ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে যাতে দীর্ঘায়িত সাপ্লিমেন্টের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে পারে।
তবে ভোলামনো মানুষের জন্য এটা একেবারেই দারুন একটি সংবাদ এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই।

আপনার মতামত লিখুন :

ট্যাগ

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close