পৃথিবীমহাকাশ

চাঁদ না থাকলে কি হতো?

চাঁদ আমাদের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা বোঝার জন্য চাঁদকে একবার হারানোই যথেষ্ট একসময় পৃথিবীতে চাঁদ ছিলোনা এবং পৃথিবী শুধুমাত্র সূর্যকে প্রদক্ষিণ করত। কিন্তু একটি লাকি কো-ইন্সিডেন্স পৃথিবীর ভবিষ্যত বদলে দেয়।

চাঁদ আমাদের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা বোঝার জন্য চাঁদকে একবার হারানোই যথেষ্ট একসময় পৃথিবীতে চাঁদ ছিলোনা এবং পৃথিবী শুধুমাত্র সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতো।

কিন্তু একটি লাকি কো-ইন্সিডেন্স পৃথিবীর ভবিষ্যৎ বদলে দেয়। এটা ঠিক সেই মুহূর্ত যখন ভয়ংকর কিছু ঘটে এবং নতুন একটি সুন্দর সৃষ্টি হয় এবং মঙ্গল গ্রহ নামের একটি অজানা বস্তু পৃথিবীর সাথে সংঘর্ষ করে। সংঘর্ষের ফলে ওই গ্রহটির কিছু ধ্বংসস্তূপ এবং পৃথিবী গ্রহের মিলিত কিছু কণা ও ধূলি পৃথিবীর কক্ষপথের চারপাশে ঘুরতে থাকে এবং পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ এর কারণে তারা একসাথে জড়ো হয় এবং একটি আকার ধারণ করে যাকে আমরা আজকের দিনে চাঁদ বলি।

তখনকার পৃথিবীতে কোন প্রাণীর অস্তিত্ব ছিল না আর এই ঘটনার অনেক বছর পর পৃথিবীতে প্রাণের সৃষ্টি হয়। বিজ্ঞানীদের মতে চাঁদই পৃথিবীতে প্রাণ সৃষ্টির জন্য দায়ী এমনকি এটাও বলা হয়েছে চাঁদ পৃথিবীতে প্রাণীর জন্ম দিয়েছে। এটা পৃথিবীর ক্ষেত্রে এক মহাজাগতিক চুম্বকের মতো কাজ করে যা হয়তো জীবনকে আবার ফিরিয়ে নিতে পারে। কারণ সমুদ্রের পানির উপর চাঁদের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রয়েছে। পৃথিবীর কক্ষপথে ভ্রমণের সময় চাঁদ আমাদের পৃথিবীর watermarks কে আকর্ষিত করে চাঁদের মাধ্যাকর্ষণ শক্তির মাধ্যমে। যার জন্যই জোয়ার ভাটার সৃষ্টি হয়।

একটি হয় চাঁদের দিকে এবং অন্যটি হয় চাঁদের বিপরীত দিকে। পৃথিবীর যেদিকে চাঁদের অবস্থান থাকে সেখানকার পানির উচ্চতা অন্য জায়গার পানির উচ্চতার চেয়ে বেশি হয়। এভাবে চাঁদকে পৃথিবীতে আটকে রাখতে সাহায্য করে।

সূর্য তার মাধ্যাকর্ষণ শক্তির মাধ্যমে পৃথিবীতে আকর্ষণ করে কিন্তু সেটা চাঁদের তুলনায় অনেক কম। সূর্য চাঁদের তুলনায় এত বড় হওয়া সত্ত্বেও সূর্য চাঁদের তুলনায় মাধ্যাকর্ষণ শক্তি কম হওয়ার কারণ হল দূরত্ব। পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব চাঁদের তুলনায় প্রায় ৪০০ গুণ বেশি এবং এই অবস্থায় আপনি ভেবে দেখুন,

যদি এখন সৌরজগতের চাঁদ কে সরিয়ে দেয়া হয় তবে কি হবে?

আজকের পোস্টে এতক্ষণ যাবত এবং পরবর্তীতে আমি এটাই আলোচনা করছিলাম ও করব।

যদি এখন সৌরজগত থেকে চাঁদ কে সরিয়ে দেয়া হয় তাহলে পৃথিবীর পানির সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ চাঁদের থেকে চলে যাবে সূর্যের কাছে যা দুটি বিপর্যয়কর ফলাফল তৈরি করবে। কিন্তু যদি চাঁদের অবস্থান পরিবর্তন করে দেয়া হয় তাহলে সূর্য ও চাঁদের মাধ্যাকর্ষণ পৃথিবীর দুটি আলাদা আলাদা প্রান্তে কাজ করবে ফলে দুই প্রান্তের জলরাশি তাদের মাধ্যাকর্ষণ বলের প্রভাবে মিলিত হওয়ার জন্য সুনামি সৃষ্টি করবে। যদি এমনটা হয় তাহলে পৃথিবীর সমুদ্র সংলগ্ন জায়গাগুলি পানির নিচে তলিয়ে যাবে যার ফলে আমরা নিজেদের কিছু সভ্যতা কে নিজেদের চোখে ধ্বংস হতে দেখব। মহাপ্রলয়ের পর সমুদ্র আবার শান্ত হয়ে যাবে তখন সমুদ্রে শুধুমাত্র সমুদ্রের টানে জোয়ার-ভাটা ঘটবে। কিন্তু আমাদের এই সুন্দর পৃথিবী আর কখনোই একই রকম হবে না। সবকিছুই তখন পাল্টে যাবে সমুদ্রের পানির এই অস্থিরতার জন্য পৃথিবীর globalizing নষ্ট হয়ে যাবে ফলে পৃথিবী সম্পূর্ণ unpredictable climate এ পরিণত হয়ে যাবে. যার ফলে অনেক প্রাণী ও উদ্ভিদের প্রযোজন ক্ষতিগ্রস্ত হবে. কিন্তু climate আরো বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে একদম পৃথিবীর শেষ পর্যন্ত সমুদ্রের অস্থিরতার ফলে lonar gravity পৃথিবীতে নিজের কক্ষে স্থির রাখতে বাধা প্রদান করবে যার ফলে প্রতি ২৬০০ বছরে এই পৃথিবীর ৪ ডিগ্রী সাইকেলে রুটেড হতে থাকবে।

অর্থাৎ পৃথিবী কেন্দ্রিক অবস্থান পরিবর্তন হতে থাকবে। বর্তমানে পৃথিবীর চাঁদ ও সূর্যের অভিকর্ষ বলের প্রভাবে নিজের অক্ষে স্থির থাকে। ফলে পৃথিবী নিজ ইচ্ছায় অন্যদিকে নড়াচড়া করতে পারে না। কিন্তু আমরা যদি চাঁদ কে সরিয়ে দেই তাহলে আমরা আমাদের গ্রহের strongest driving force কেও সরিয়ে দেবো ফলে আমরা এই পুরো পৃথিবীসহ মহাশূন্যের আলাদা আলাদা দিকে ঘুরতে শুরু করব যার ফলে পৃথিবীর তাপমাত্রাও কমবে এবং বাড়বে।

 

চাঁদ

এই মহাজাগতিক পরিবর্তন পৃথিবীর আবহাওয়া কেও সম্পূর্ণরূপে পাল্টে দিবে। পৃথিবীতে তখন কোন বসন্ত কাল আসবে না। শীত কাল থাকবে না গ্রীষ্ম ও বর্ষারও কোন নির্দিষ্ট সময় থাকবে না। তাপমাত্রা অদ্ভুতভাবে ওঠানামা করতে থাকবে। রাতে ৮২ ডিগ্রি ফারেনহাইট তাপমাত্রা হলে সকালে তা -৫৮ ডিগ্রী ফারেনহাইট হয়ে যেতে পারে যেমনটা কিনা মঙ্গল গ্রহে হয়ে থাকে। প্রায় সমস্ত মানবজাতি মৃত্যুবরণ করবে কিন্তু কিছু সংখ্যক মানুষ হয়তো বেঁচে যাবে যা আমাদের সভ্যতার একমাত্র উদাহরণ হয়ে থাকবে। কিছু দুর্বল মানুষেরা হয়তো অন্য গ্রহে চলে যাবে কিন্তু যারা শক্তিশালী তারা আরো শক্তিশালী হবে। এই প্রকৃতির সাথে মানিয়ে চলার জন্য যা আবারো পুনরায় একটি নতুন পৃথিবী সৃষ্টি করবে যার কল্পনা আমরা করতে পারি না।

আর চাঁদ কে সরিয়ে নেয়ার পর সবচাইতে বড় যে বিপর্যয় ঘটবে সেটা হল খাদ্যের অভাব। তখন সমুদ্রে আর কোন খাদ্য সংগ্রহ করা যাবে না কারণ সমুদ্রের অধিকাংশ খাদ্য পরিচালনা চাঁদের মাধ্যমে হয়ে থাকে। কারণ সাগরের মাছেরা রাত্রি বেলা চাদের আলোতে খাদ্য সন্ধান করে বেঁচে আছে। আর বড় বড় প্রাণীরা ঐ সকল ছোট প্রাণীদের খেয়ে বেঁচে রয়েছে। আর যখন চাঁদ থাকবে না তখন ওই বাস্তুসংস্থান টা সম্পূর্ণরূপে পাল্টে যাবে ফলে প্রচুর সামুদ্রিক প্রাণী মারা যাবে আর সেই প্রাকৃতিক অবস্থায় কিছু অদ্ভুত ও অভূতপূর্ব প্রাণীর প্রাণের সৃষ্টি হবে। আর এই সম্পূর্ণ জিনিসটা এই পৃথিবীর ইকোনমিক লাইফ স্টাইলকে সম্পূর্ণভাবে পাল্টে দিবে এবং এভাবে পৃথিবী আবারো সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস হয়ে যাবে।

এবং  এভাবেই পৃথিবী একবার ধ্বংস হয়ে যাবে আবার পুনরায় সৃষ্টি হবে। সৃষ্টি হওয়ার পর আবার ধ্বংস হয়ে যাবে আবার পুনরায় সৃষ্টি হবে আর এভাবেই চলতে থাকবে পৃথিবীর অবস্থা।

 

আপনার মতামত লিখুন :

ট্যাগ

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close