প্রযুক্তি

আমেরিকার সবচেয়ে শক্তিশালী সুপার কম্পিউটার “Summit”

চাইনিজ সুপার কম্পিউটার Sunway TaihuLight কে টপকে Summit এখন শিরপা অর্জন করেছে সুপার কম্পিউটার জগতে

গত সপ্তাহে টেনেসিতে Department of Energy’s এর সদস্য রা Ridge National Laboratory in Tennessee তে এটি প্রকাশিত করেন। এটি প্রতি সেকেন্ডে ২০০০০ ট্রিলিয়ন গণনা করার ক্ষমতা রাখে, যা ২০০ পেটাফ্লপ নামে পরিচিত।এই আগের রেকর্ড ধারক কম্পিউটার এর চেয়ে, দ্বিগুণ বেশী শক্তিশালী। Summit এক সেকেন্ডে যত গণনা করতে পারে সেটি মানুষের গণনা করতে ৬ বিলিয়ন বছর লাগবে। এমআইটি(MIT) টেক রিভিউ বলছে, “পৃথিবীর প্রত্যেকের ৩০৫ দিনের জন্য প্রতিদিন প্রতি সেকেন্ডে গণনা করা উচিত, কারণ পৃথিবীর সব মানুষ যা ৩০৫ দিনে যতগুলো সংখ্যা গণনা করতে পারবে আর Summit নামের সুপার কম্পিউটারের লাগে ১ সেকেন্ড মাত্র। “আজকের Summit নামের সুপার কম্পিউটারটির উদ্ভাবন ও প্রযুক্তি উন্নয়নে আমেরিকান নেতৃত্বের শক্তিকে তুলে ধরেছে অন্যতম ধারণায়। আমেরিকান শক্তি গবেষণা ইনিস্টিটিউড এর সম্পাদক Rick Perry একটি বিবৃতিতে বলেন। “এটি শক্তির গবেষণা ইউনিট, বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার, অর্থনৈতিক প্রতিযোগিতা এবং জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ে গভীর প্রভাব রাখবে।” এটি একটি একক মেশিন নয় বরং ৪৬০৮ টি কম্পিউটার সার্ভারের একটি সিস্টেম, দুটি ২২ কোর-আইবিএম পাওয়ার ৯টি প্রসেসর এবং ছয় এনভিডিয়া টেসলা V100 গ্রাফিক্স প্রক্রিয়াকরণ ইউনিট অ্যাকসিলেটরস। এটি টাইটান এর চেয়ে আট গুণ বেশি শক্তিশালী, যা আগের সুপারকম্পিউটার ORNL এর চেয়ে সেরা সুপারকম্পিউটার।

সামিট এর ওজন ৩৪০ টন, একে শীতল থাকার জন্য ৪০০০ গ্যালন জল প্রয়োজন। আমেরিকার ৮০০০ ঘরের জন্য যে পরিমাণ বিদ্যুৎ শক্তি এর প্রয়োজন হয় Summit সুপারকম্পিউটারের একাই সেই পরিমাণ শক্তির প্রয়োজন হয়। এর আয়তন প্রায় ৮৬০ বর্গ মিটার (৯২৫৬ বর্গ ফুট) ছড়িয়েছে, প্রায় তিনটি টেনিস কোর্টের আকার। এখন অবশ্যই প্রশ্ন আসে এটি কি জন্য ব্যবহার করা হবে? গবেষক রা বলেছেন এটি ওষুধ তৈরিতে এবং বিজ্ঞানীদের সুপারনোভাকে অনুকরণ করতে সাহায্য করবে। এছাড়াও গবেষকরা মার্কিন জনসংখ্যার ক্যান্সার আক্রান্ত জনসংখ্যার জন্য সুপারকম্পিউটারটি ব্যাপক দৃষ্টিভঙ্গি প্রদান করবে বলে জানিয়েছেন। এটি কেবল মাত্র কয়েক শত পরমাণু তৈরি করে তৈরি বস্তুগুলি বিকাশ করতে সাহায্য করবে এবং মানব দেহে নিদর্শনগুলি চিহ্নিত করবে যা Alzheimer’s মত জিনিসগুলি উত্থাপন করবে। কম্পিউটেশনাল বিজ্ঞান ইন্সটিটিউটের ORNL সহযোগী গবেষণাগার পরিচালক জেফ নিকোলস(Jeff Nichols) বলেন, সামিট(Summit) হল পরবর্তী দ্রুতগতিতে কম্পিউটিং শক্তি, মেমরি গণনার জন্য একটি অত্যন্ত উচ্চ-পারফরম্যান্স ফাইল সিস্টেম যা দ্রুত তথ্য পাথকে একসঙ্গে টেনে নিয়ে যাবে়। এই বিবৃতি “এর অর্থ হচ্ছে গবেষকরা দ্রুততর সঠিক ফলাফল পেতে সক্ষম হবে।” কোনও সন্দেহ নেই যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর সুপারকম্পিউটারের শিরোনাম পুনরুদ্ধার করা এটি একটি বড় আশীর্বাদ। বিশ্ব অপেক্ষায় থাকবে Summit এর সুপারন্যাচারাল ক্ষমতা কতটুকু আমাদের জন্য আশীর্বাদ বয়ে আনবে সে জন্য।

একনজরে দেখে নিন সুপার কম্পিউটার নিয়ে আরেকটি আর্টিকেলঃ

সেরা ৫ : সবচেয়ে শক্তিশালী পাঁচটি সুপার কম্পিউটার(আমেরিকাকে টপকে জায়গা করে নিয়েছে চায়না)

আপনার মতামত লিখুন :

ট্যাগ

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close