বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী

তানজিমের ইদ ও প্রযুক্তির অভিশাপ

শুধু বিজ্ঞান, বিজ্ঞান আর বিজ্ঞান।  আজ সেই ২০১৭ সালের শুধু একটি মাত্র হোটেলে নয় পুরান ঢাকার ওই চিপা রাস্তার বাখরখানি বানানোর কারিগরও আজ রোবট।  সকল হোটেলের হোটেল বয়ও রোবট।  সিটি কর্পোরেশনের রাস্তা পরিষ্কার কর্মী রোবট।  কত রকম রোবট যে আমাদের দৈনন্দিন জীবনের সাথে মিশে আছে তা বলে শেষ করা যাবে না।  আছে ছোট রোবট,  বড় রোবট, চিকন রোবট,  মোটা রোবট,  ন্যানোরোবট এমনকি এক্সা রোবটও আছে দুই একটা।  ন্যানোরোবট গুলো মানুষের খুব কাজের। এখন হার্টের সমস্যা সমাধানে লাগে শুধুমাত্র ন্যানোরোবট যুক্ত একটি ইনজেকশন মাত্র।  ডাক্তার শরীরে ইনজেকশন পুশ করে দেন আর ন্যানোরোবট গুলো হার্টে চলে গিয়ে তাদের হাতে থাকা ন্যানোঝাড়ু দিয়ে পরিষ্কার করে দেয় কোলেস্টেরল।  মিল – কারখানা থেকে শুরু করে রহমত আলীর চা এর দোকানও চালায় রোবট আর এই সবকিছুতে সবচেয়ে বেশি অবদান যার তিনি হলেন আমাদের গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বিজ্ঞানমন্ত্রী ড. লুবান হাবীব।

 

ইদের দিন সকালে তানজিম টিভিতে এই ধরনের আজে বাজে নিউজ দেখে চটে গেল।  চিৎকার করে বলল,  TV you just shut up.” এটা শুনেই টিভি মিউট হয়ে গেল। তারপর তানজিম আওরাতে লাগল,  “ইদের দিনেও শান্তি নাই সরকার কি না কি একটু মজার কিছু দেখাবে তা না তারা আছে নিজেদের গুণগান নিয়ে “।

 

আচ্ছা এসব যদি তানজিমের সাথেই হয়ে থাকে তবে তোমাকে গল্পটা বলছে কে?? আরে আমি বলতেছি আমি তানজিমের কুকুর; মুকু। 

 

এরপর তানজিম গোসলে গেল।  আজ ইদ পরতে হবে তো!!  গোসল সেরে সেমাই খেয়ে তানজিম চলে গেল ইদগাহে।  আমাকে তো কেউ ইদগাহে নিবে না তাই আমি আর কি করব ; তানজিমের আম্মুর সাথে সিরিয়াল দেখতে বসে গেলাম।  ইদ উপলক্ষে তানজিমের বাবা নতুন টিভি কিনে এনেছেন Brason ব্র্যান্ডের।  এখানে Transmitting in reality নামক নতুন টেকনোলজি ব্যবহার  করা হয়েছে ।  মানে থ্রিডি গগল্স ছাড়াই টিভি দেখলে সব মনে হয় চোখের সামনেই ঘটছে। 

 

ও আচ্ছা আমি তো তানজিমের পরিচয় দিতেই ভুলে গেছি।  তানজিম দ্বাদশ শ্রেণির বিজ্ঞানের ছাত্র যদিও সে প্রযুক্তির এত এত ব্যবহার মোটেও পছন্দ করে না। আর ও যেমন লম্বা তেমনি সুঠামদেহী ঠিক আমাদের পাড়ার ফয়সালের মত। 

 

তানজিম নামাজ পরে বাসায় ফিরল।  আন্টি ওকে গরুর কালো ভুনা পরোটা খেতে দিল ও প্লেটে সবকিছু নিয়েই এক দৌড়ে চলে এলো টিভি দেখতে।  পরোটা খাচ্ছে এমন সময় স্মরণিকা ফোন দিয়ে ওকে বইরে ঘুরতে যেতে বলছে কিন্তু ও বলে দিল সে আজ কোথাও যাচ্ছে বা সারাদিন বাসায় টিভি দেখবে আর ঘুমাবে।  তানজিমের সাথে টিভি দেখে মজা নেই এখন এক চ্যানেল তো পাঁচ মিনিট পর আরেকটা এভাবে করতে করতে ও ‘Discovery Channel ‘ এ এসে থেমে গেছে। কেন????? একটু পরেই বুঝলাম যে গ্ল্যাডিয়েটরদের যুদ্ধ দেখাচ্ছে সেখানে।  আর গ্ল্যাডিয়েটর হল ‘ তরবারিওয়ালা মানব ‘  যে কিনা অন্য কোনো গ্লাডিয়েটর কিংবা হিংস্র প্রাণীর সাথে যুদ্ধ করে।  অনেকে এটা নিয়ে নাও জানতে তাই বললাম আরকি আমি কুকুর হলে কি হবে বাচাল বটে। তানজিম প্রাচীন জিনিস এবং প্রাচীন  সংস্কৃতি বেশ ভালবাসে তাই এবার চ্যানেল চেঞ্জ না করেই দেখতে  থাকল এমনি সময় হঠাৎ টিভি ঝিরঝির শুরু করল তানজিম উঠে লাইনটা ঠিকমত লাগিয়ে ফিরতেই আবার চালু হয়ে গেল।  আমি দেখছি হঠাৎ করে একটা গ্লাডিয়েটর তানজিমের উপরে তরবারি চালাল হ্যাঁ ওটা তানজিমই তো।  তানজিম হুট করে সরে যাওয়ায় ওর পিছনে থাকা টেবিলটা দুই টুকরো হয়ে গেল।  আজব তো তানজিমের উপর গ্লাডিয়েটর তলোয়ার চালাল কিভাবে?? 

ওমা তানজিম তো ঘরে নেই কিভাবে টিভির ভিতরে গেল??  আমি বাসার সবাইকে বুঝানোর চেষ্টা করেছি কিন্তু কেউ বুঝে নি কারণ তানজিমের আম্মু ‘ Discovery channel ‘  করে সিরিয়াল দেখতে চলে যান।  এভাবেই হারিয়ে যায় তানজিম।  

আজও ইদ বছর ঘুরে একবছর হল তানজিম নেই।  ওইদিনটার কথাগুলো খুব মনে হচ্ছিল তানজিমের কি হয়েছে জানি না হয়ত  বা কোনো গ্লাডিয়েটর ছিন্ন ভিন্ন করেছে তানজিমের নিষ্পাপ দেহ অথবা কোনে হিংস্র প্রাণীর শিকার হয়েছে তানজিন।  এগুলো মনে করতে করতেই আমার Dog feed এ দুফোটা পানি গড়িয়ে পরল। 

 

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close