পরিবেশপৃথিবী

শীঘ্রই হয়ত গর্জে উঠবে আইসল্যান্ডের ভয়ংকর আগ্নেয়গিরি!

গ্রিমসভোটন , একটি সাবগ্লাসিয়াল আগ্নেয়গিরি, ইউরোপের বৃহত্তম হিমবাহ, ভাতনাজাকুল হিমবাহের পশ্চিম অঞ্চলের মধ্যে Eyjafjallajökull  আগ্নেয়গিরির ১৪০ কিলোমিটার পূর্বে অবস্থিত। আইল্যান্ডের বরফ ঢাকা গ্র্যামস ভোটন আগ্নেয়গিরি ২০১১ সালে একটি অস্বাভাবিক আকারে বড় এবং শক্তিশালী বিস্ফোরণ ঘটায়, যার কারণে বায়ুমন্ডলের ২০ কিলোমিটার পর্যন্ত ছাই চলে যায় এবং প্রায় ৯০০ যাত্রীর ফ্লাইট বাতিল করা হয়। এর আগে, ২০১০ সালে Eyjafjallajökull আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণে ১০০,০০০ ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছি্লো। আইল্যান্ড হলো আগুন এবং বরফের দেশ, বেশ কয়েকটি আগ্নেয়গিরির কেন্দ্র এবং এতে দুটি টেকটোনিক প্লেট রয়েছে। মার্চ মাসে Eyjafjallajökull  আগ্নেয়গিরির লাভা উদগীরণ শুরু হয়েছিল। ১৪ ই এপ্রিল, বিস্ফোরণটি একটি নতুন বিস্ফোরক পর্যায়ে প্রবেশ করে যা ছিল ইউরোপীয় আকাশ সীমাকে একদম স্থবির করে দেয়।

বুঝা যাচ্ছে যে আইল্যান্ডীয় আগ্নেয়গিরি থেকে আরো একটি বিস্ফোরণ বিমান ভ্রমণ শিল্পে উদ্বেগ বাড়িয়ে তুলবে, যা ইতিমধ্যে কোভিড-১৯ মহামারীর সময় থেকে শুরু করে হয়ে গিয়েছে। তবে গ্র্যামস ভোটন আগ্নেয়গিরি আবারও বিস্ফোরণ হওয়ার সুস্পষ্ট চিহ্ন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ফলস্বরূপ, বিমান কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি এই আগ্নেয়গিরির জন্য হুমকির মাত্রা বাড়িয়েছে। গ্র্যামস ভোটন একটি অদ্ভুত আগ্নেয়গিরি, কারণ এটি প্রায় পুরো বরফের নীচে অবস্থিত, এবং একমাত্র স্থায়ীভাবে দৃশ্যমান অংশটি দক্ষিণ দিকের একটি পুরানো পর্বতে বৃহদাকার গর্ত লক্ষ্য করা যায় যা ক্যালডেরা নামে পরিচিত এবং ৬-৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত । আগ্নেয়গিরি থেকে তাপীয় শক্তির কারণে ক্যালডেরায় তরল জলের একটি হ্রদ তৈরি হয়েছে। 

গলিত বরফ দ্বারা তৈরি হ্রদ

আরেকটি অদ্ভুত ব্যাপার হলো আগ্নেয়গিরি থেকে তাপের নির্গমন অস্বাভাবিকভাবে বেশি  (২০০০-৪০০০ মেগাওয়াট), এবং এর ফলেই উপরিতলের বরফ গলে যায় এবং গলিত পানি দ্বারা একটি লুকানো সাবগ্লাসিয়াল হ্রদ তৈরি হয়। এটি ১০০ মিটার পর্যন্ত গভীর এবং এতে প্রায় ২৬০ মিটার পুরু পর্যন্ত বরফ রয়েছে। বরফ ক্রমাগত ক্যালডেরায় প্রবাহিত হয়, এখানে এটি গলে যায়, ফলে জলের স্তর কেবল ক্রমশ বাড়তেই থাকে। এই গলিত জলের হঠাৎ করে নির্গমণ ঘটতে পারে এবং প্রায় ৪৫ কিলোমিটার অবধি বরফের নীচে দক্ষিণ দিকে ভ্রমণ করার পরে এটি বরফের প্রান্তরে উত্থিত হয়, যার ফলে অতীতে রাস্তা ও সেতু ভেসে গিয়েছিলো। ভাগ্যক্রমে, বরফের নীচে গলিত পানির প্রবেশপথের প্রবেশের বিষয়টি শনাক্ত করা যেতে পারে, তাই যাত্রীরা বন্যায় আটকা পড়ে যাতে হতাহত না হয় তার জন্যে রাস্তাগুলো সঠিক সময়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়ে থাকে। গ্র্যামসভ্টন-এর আরেকটি সমালোচনামূলক বিশেষত্ব হ’ল এটির হালকা চাপের জন্য গলিত পানির হ্রদ নিষ্কাশিত হয় ফলে আগ্নেয়গিরির শীর্ষ থেকে জল সরে দ্রুত চাপ হ্রাস করে। এটি বিস্ফোরণ ঘটায় – প্রেসার কুকারের লিডটি উত্তোলনের মতো। গ্রিমস ভোটনে এটি বহুবার ঘটেছে।

গ্রিমস ভোটন হলো আইল্যান্ডের আগ্নেয়গিরি যা ঘন ঘন বিস্ফোরিত হয়। সেখানে গত ৮০০ বছরে প্রায় ৬৫ টি বিস্ফোরণ ঘটেছে। বিস্ফোরণগুলির মধ্যে সময়ের ব্যবধানগুলি পরিবর্তনশীল । উদাহরণস্বরূপ, ২০১১ সালের বৃহত্তর  বিস্ফোরণের আগে ২০০৪, ১৯৯৮ এবং ১৯৮৩ সালে চার থেকে ১৫ বছরের ব্যবধানে সাথে ছোট ছোট বিস্ফোরণ ঘটেছিলো। পরবর্তী বিস্ফোরণকে সামনে রেখে গ্রিমস ভোটনে প্রতি ১৫০-২০০ বছর পর পর বৃহৎ আকারে বিস্ফোরণ (উদাহরণস্বরূপ, ২০১১, ১৮৭৩, ১৬১৯) ঘটে এবং এর মাঝে প্রায় প্রত্যেক দশকে ছোট বড় বেশ কয়েকটি বিস্ফোরণ ঘটেছে । পূর্ববর্তী আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের একটি উচ্চ ফ্রিকোয়েন্সি দ্বারা বিজ্ঞানীরা পরবর্তী বিস্ফোরণ ঘটবে কখন এমন নিদর্শনগুলি সনাক্ত করতে সহায়তা করে। এবং যদি প্রতিবার আগ্নেয়গিরি বিস্ফোরণ বার বার পুনরাবৃত্তি করা হয় তবে বিজ্ঞানীদের পক্ষে আরও সুনিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয় যে অদূর ভবিষ্যতে কোনও অগ্নুৎপাতের সম্ভাবনা রয়েছে কিনা।  তবে, সঠিক দিন সম্পর্কে সুনিশ্চিত হওয়া অনেকটা অসম্ভব।

আইসল্যান্ডের বিজ্ঞানীরা ২০১১ সালের অগ্নিকাণ্ডের পর থেকে গ্রিমস ভোটনকে সাবধানতার সাথে পর্যবেক্ষণ করছেন এবং বিভিন্ন সংকেত দেখেছেন যা ইঙ্গিত করছে আগ্নেয়গিরিটি বিস্ফোরিত হওয়ার জন্য প্রস্তুত হচ্ছে । ক্রমশ বর্ধমান তাপীয় ক্রিয়াকলাপের কারণে আরো বরফ গলে যাচ্ছে এবং ভূমিকম্পের সম্ভাবনা সাম্প্রতিক সময়ে বৃদ্ধিও ঘটেছে। তারপরে কী হবে? আবার অতীতের বিস্ফোরণে লক্ষ্য করা প্যাটার্নের উপর ভিত্তি করে কয়েক ঘন্টা (এক থেকে দশ ঘন্টা) অবধি ভূমিকম্পের তীব্র ঝাঁকুনি ইঙ্গিত দেবে যে ম্যাগমা ভূ-পৃষ্ঠের দিকে এগিয়ে চলেছে এবং একটি অগ্নুৎপাত আসন্ন।যখন লুকানো সাবগ্লাসিয়াল হ্রদটি নিষ্কাশন করে এবং বিস্ফোরণ ঘটায়, তখন বিস্ফোরণের আগে হ্রদটি শুকিয়ে যাওয়ার পরে ভূমিকম্প হয়। যখন ভূমি জল এবং বরফের সংস্পর্শে আসে তখন ছোট গ্রিমস ভোটন বিস্ফোরণগুলি প্রচুর পরিমাণে শক্তি ব্যয় করে। ফলস্বরূপ ছাই ভিজে যায় ও চিটচিটে হয়ে যায় এবং তাই আকাশ থেকে ছাইগুলো তুলনামূলকভাবে দ্রুত পড়ে যায়। ছাইয়ের মেঘগুলি কেবল অগ্ন্যুৎপাত স্থান থেকে কয়েক কিলোমিটার ভ্রমণ করে। এটি আইল্যান্ডবাসীদের জন্য এবং বিমানে ভ্রমণকারীদের জন্যেও একটি ভালো দৃশ্য। তা না হলে এটি প্রচুর ছাই মেঘের গঠনকে বাধা দেয় এবং ছাইমেঘ চারদিকে প্রস্থান করে আকাশসীমা বন্ধ করে দিতে পারে।

তবে কি এটা ছোট বিস্ফোরণ? যেহেতু গ্রিমসভোট্ন এ মাঝেমধ্যে বৃহত অগ্ন্যুত্পাতগুলির মাঝে আরও অনেক ছোট ছোট অগ্ন্যুৎপাত ঘটে। ধারণা করা হচ্ছে পরবর্তী বিস্ফোরণটি ছোট্ট বিস্ফোরণ হওয়া উচিত, কারণ ২০১১ সালের বিস্ফোরণ একটি বৃহত্তর বিস্ফোরণ ছিলো। আইসল্যান্ডের আগ্নেয়গিরিগুলো জটিল প্রাকৃতিক ব্যবস্থা, এবং বৈজ্ঞানিক প্যাটার্নগুলো সর্বদা বিশ্বস্তভাবে অনুসরণ করা হয় না। এখন শুধুই অপেক্ষার পালা।

তথ্যসূত্রঃ theconverstation.com

আপনার মতামত লিখুন :

Back to top button
Close